একটা সময় ছিলো, যখন মোবাইল ডিভাইস ব্যবহার হতো শুধু কথা বলা আর টেক্সট মেসেজ পাঠানোর জন্য। কিন্তু এখন আমাদের জীবন মোবাইল ডিভাইসের সাথে আরও বেশী জড়িয়ে গেছে যেমনঃ ব্রাউজিং, ছবি ডাউনলোড, গান শোনা, ভিডিও স্ট্রিমিং এবং ভিডিও কল ইত্যাদি কিন্তু, যতো বেশী ইন্টারনেট সার্ফিং করা হবে, ততো বেশী ডাটা ব্যবহৃত হবেআর, ফোনের বিলও নাগালের বাইরে চলে যাবে। আপনি নিশ্চয়ই চান না শুধুমাত্র মোবাইল ডাটার পেছনেই পুরোটা মোবাইল ব্যালেন্স খরচ হোক এখানে কিছু সহজ উপায় শেয়ার করা হলো যাতে আপনার ফোনের বিল থাকে, আপনার নাগালের মধ্যে  Keep phone bills under control

ডাটা ইউসেজ লিমিট সেট করুন

আপনি যদি এন্ড্রয়েড ইউজার হয়ে থাকেন তাহলে আপনি একটা ডাটা লিমিট ফিক্সড করে দিতে পারবেন। এজন্য আপনার ব্রাউজারের সেটিংসে যান, সেখান থেকে  “Set mobile data limit”এ গিয়ে ওয়ার্নিং লেভেল আর ডাটা লিমিট নির্ধারণ করুন। এতে আপনার পরিকল্পনা মাফিক ডাটা ব্যবহৃত হবে। অপেরা মিনির মতো ভালো মানের ব্রাউজারগুলোতে এই সুবিধা পাবেন।  

অব্যবহৃত অ্যাপসগুলি বন্ধ করে রাখুন

কিছু কিছু সক্রিয় অ্যাপস  স্মার্টফোনে প্রতিনিয়ত ডাটা খরচ করতে থাকে যেমনঃ ওয়েদার আপডেট, লাইভ গেম আপডেট, ফাইল শেয়ারিং ইত্যাদি। আপনি চাইলে এই অ্যাপসগুলি থামিয়ে রেখে অথবা শুধু প্রয়োজনের সময় ব্যবহার করেও ডাটা সেভ করতে পারেন

হেভি ডাটা ব্যবহারের জন্য বেছে নিন ওয়াই-ফাই  

ভিডিও অথবা মিউজিক স্ট্রিমিং, অনলাইন গেমস খেলা এবং ছবি কিংবা ভিডিও আপলোড অনেক বেশী ডেটা কনজিউম করে থাকেএতে করে আপনার ফোন বিল বেড়ে যায়। তাই এই কাজগুলোর জন্য বেছে নিন ওয়াই-ফাই। যখন ওয়াই-ফাই হাতের কাছে পাবেন তখন হেভি ডাটা ব্যবহারের কাজগুলো করতে পারেন।

অফলাইনে দেখার জন্য পেজগুলি সেভ করে রাখুন

একটা ছোট্ট পরিকল্পনা আপনাকে অনেক দূর পর্যন্ত নিয়ে যেতে পারে। আপনি চাইলে বিভিন্ন আর্টিকেল, রুট-ম্যাপ বা যেকোন পেজ সেভ করে রাখতে পারেন। পরে এগুলো আপনার প্রয়োজন মতো ব্যবহার করতে পারবেন অপেরা মিনি আপনাকে পেজসেভ করে রাখতে সাহায্য করবে। আপনি পরে এই পেজগুলো প্রয়োজনমতো দেখে নিতে পারবেন।

ডাটা ম্যানেজমেন্ট অ্যাপস ব্যবহার করুন

আপনি যদি এনড্রয়েড ইউজার হয়ে থাকেন, তাহলে আপনি ডাটা ম্যানেজমেন্টের জন্য অপেরা ম্যাক্স ব্যবহার করতে পারেন। এটি আপনার ডিভাইস থেকে  ছবি বা ভিডিও সংকুচিত (কমপ্রেস) করে আপলোড করে থাকে, ফলে ডাটা কম ব্যবহার হয় । আপনি চাইলে দেখতে ও নিয়ন্ত্রন করতে পারবেন কতটুকু ডাটা ব্যবহৃত হলো।

মোবাইল ডাটা খরচ কমানোর জন্য এই টিপসগুলো আপনি ব্যবহার করে দেখতে পারেন এতে করে আপনার মোবাইল বিল থাকবে নিয়ন্ত্রনে। আপনার মাথায় যদি আরও কার্যকরী কোন আইডিয়া থেকে থাকে তবে শেয়ার করতে পারেন আমাদের সাথে, কমেন্ট সেকশনে।

Related Posts

Back to top